সংগৃহীত

তাপমাত্রা রেকর্ড পরিমাণ কমে যাওয়ায় বরফের মতো জমে যাওয়ার দশা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য, পশ্চিম ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে। ইতোমধ্যে অতিরিক্ত ঠাণ্ডায় বিভিন্ন রাজ্যে প্রাণ হারিয়েছেন ২১ জন। আহত হয়েছেন আরোও ২৫ জন।

বৃহস্পতিবার কোথাও কোথাও তাপমাত্রা মাইনাস ৫৬ ডিগ্রি ফারেনহাইটে নেমে এসেছিল বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। বুধবার শিকাগোর তাপমাত্রা ছিল অ্যান্টার্কটিকার চেয়েও ১০ ডিগ্রি ফারেনহাইট কম।

কিছু কিছু শহরে তাপমাত্রার উন্নতি হলেও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষজন বিশেষ করে আশ্রয়হীন ও বৃদ্ধরা দ্রুতই ফ্রস্টবাইটসহ নানান ধরনের অসুখে আক্রান্ত হতে পারেন বলে সতর্ক করা হয়েছে।
কেবল একদিনেই শিকাগোতে নয়জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

সুমেরুর হাড়জমানো ঠাণ্ডা হাওয়া দক্ষিণমুখী হওয়ার ফলেই এই বিপজ্জনক পোলার ভর্টেক্সের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। তাদের আশঙ্কা, আগামীকাল শনিবার তাপমাত্রা আরও নেমে যেতে পারে। চলে যেতে পারে শূন্য ৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াসেরও নিচে।

শিকাগোর জন এইচ স্ট্রোগার জুনিয়র হাসপাতালের চিকিৎসক স্টেথিস পাওলাকিদাস জানিয়েছেন, পোলার ভর্টেক্সের জন্য বুধবার পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ছিল ১২। কিন্তু বৃহস্পতিবার শিকাগোয় তুষার ক্ষতের শিকার হয়েছেন আরও নয়জন।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন অন্তত ২৫ জন। তাদের বাঁচাতে আঙুল ও পায়ের পাতা বাদ দিতে হতে পারে। মৃতদের মধ্যে রয়েছেন আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র জেরার্ড বেল্জও। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ঘর থেকে বেরতেই তুষারপাতের মধ্যে পড়ে গিয়ে অচৈতন্য হয়ে পড়েন।

ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিস (এনডব্লিউএস) জানাচ্ছে, ওই সময় আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরের তাপমাত্রা ছিল শূন্যের ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসেরও নীচে। ওহায়োর লোরেনে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির মধ্যে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে ৬০ বছর বয়সী এক মহিলাকে।

ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিসের তরফে জানানো হয়েছে, গত ২৫ বছরে এমন আবহাওয়ার কবলে পড়তে হয়নি মধ্য, পশ্চিম ও উত্তর-পূর্ব আমেরিকাকে।

হাড়জমানো ঠাণ্ডার হাত থেকে বাঁচতে বাড়িতে বাড়িতে, অফিস, আদালতে প্রাকৃতিক গ্যাসের ব্যবহার হচ্ছে ব্যাপকভাবে। ভবিষ্যতের কথা ভেবে প্রশাসনের তরফে অবশ্য ওই গ্যাস সাশ্রয়ের অনুরোধ জানানো হয়েছে।

অসম্ভব ঠান্ডায় ডেট্রয়েটে বিখ্যাত গাড়ি নির্মাতা সংস্থা জেনারেল মোটরস্ মিশিগানে তাদের ১১টি কারখানা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে।

শেয়ার করুনঃ