শনিবার থেকে সারা দেশের ন্যায় সিলেটেও শুরু হচ্ছে ২০১৯ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা।

রুটিন অনুযায়ী বাংলা প্রথমপত্র দিয়ে শুরু হওয়া প্রথম দিনের পরীক্ষাটি সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।

এবারের পরীক্ষায় সিলেটের ৮৯৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ১৩১টি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নিবেন।

সিলেট শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. কবির আহমদ জানান, সিলেট শিক্ষা বোর্ডে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় ৮৯৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৪৭৪ জন শিক্ষার্থী অংশ নিবে।

তার মধ্যে ৪৯,১৯৪ জন ছাত্র এবং ৬৪ হাজার ২৮০ জন ছাত্রী রয়েছেন। এই শিক্ষাবোর্ডের মোট পরীক্ষা কেন্দ্র ১৩১টি বলেও তিনি উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে এসএসসি পরীক্ষা নির্বিঘ্নে অনুষ্ঠিত হবার লক্ষ্যে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে একটি গণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে সর্বসাধারণের অবগতির জন্য জানানো হয়েছে ২০১৯ সালের এসএসসি/ভোকেশনাল/দাখিল পরীক্ষা উপলক্ষ্যে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের আওতাধীন পরীক্ষা কেন্দ্র সমূহে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে সিলেট মহানগরী পুলিশ আইন-২০০৯ সালের ধারা ২৯, ৩০, ৩১, ৩২ এর প্রদত্ত ক্ষমতা বলে পরীক্ষা কেন্দ্রের ২০০ (দুই শত) গজের মধ্যে জনসমাবেশ, মিছিল, ঢাকঢোল বাজানো, লাউড স্পীকার ব্যবহার, অস্ত্রশস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য, ইট পাথর, ইত্যাদি বহণ, ব্যবহার সহ শান্তিশৃঙ্খলা ও জননিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ কোন কাজ করা যাবে না। এই আদেশের মাধ্যমে প্রত্যেকটি পরীক্ষা কেন্দ্রকে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে অস্থায়ীভাবে সংরক্ষিত এলাকা ঘোষণা করা হয়েছে। আদেশটি ২ ফেব্রুয়ারী থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত পরীক্ষা চলাকালীন প্রতিদিন সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। আদেশ লঙ্ঘনকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা ডেইলি সিলেটকে জানান, পরীক্ষা কেন্দ্রের আশ-পাশের শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে আমরা গণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছি।

তাছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে একজন পুলিশ অফিসার সহ মোট ৫ জন পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ঘোষিত সূচি অনুযায়ী, ২ থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাধ্যমিকের তত্ত্বীয় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আর ২৬ ফেব্রুয়ারি সংগীত বিষয়ের এবং ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চের মধ্যে অন্য বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষা হবে। তত্ত্বীয় পরীক্ষা দুপুর ২টা থেকে শুরু হয়ে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য মতে, সারা দেশে নিয়মিত ও অনিয়মিত মিলে এবার এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় দেশের ১১টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মোট পরীক্ষা দেবে ২১ লাখ ৩৫ হাজার ৩৩৩ জন। তাদের মধ্যে শুধু এসএসসিতে ১৭ লাখ ১০২ জন, দাখিলে ৩ লাখ ১০ হাজার ১৭২ জন এবং ভোকেশনালে ১ লাখ ২৫ হাজার ৫৯ জন।

গত বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার সার্বিক দিক সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। গত কয়েক বছর থেকে ১ ফেব্রুয়ারি এ পরীক্ষা শুরু হলেও এবার ওই দিন শুক্রবার হওয়ায় ২ ফেব্রুয়ারি থেকে পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানিয়েছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক উপকমিটি।

এবারও উত্তরপত্রের এমসিকিউ অংশের উত্তর আগে দিতে হবে। পরে নেয়া হবে সৃজনশীল ও রচনামূলক অংশের পরীক্ষা। উভয় পরীক্ষার মধ্যে কোনো বিরতি থাকবে না। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, পরীক্ষার্থীরা সাধারণ ক্যালকুলেটর ব্যবহার করতে পারবেন। তবে বিশেষ প্রযুক্তির ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা যাবে না। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে অবশ্যই পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কক্ষে আসন গ্রহণ করতে হবে। কেন্দ্র সচিব ছাড়া অন্য কেউ পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল ফোন নিতে পারবেন না।

শেয়ার করুনঃ