ডেস্ক নিউজঃ একটি ফেসবুক লাইভ। তা থেকে উচ্চ আদালতে রিট। আর সেই রিটের তাৎপর্যপূর্ণ আদেশে বদলে যাচ্ছে অনেক কিছুই।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমনের করা একটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সারাদেশে সড়ক ও মহাসড়কে বিপজ্জনক অবস্থায় থাকা বৈদ্যুতিক পোলসহ বিভিন্ন ধরনের খুঁটি ৬০ দিনের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়, সরকারের পূর্ত বিভাগসহ সংশ্লিষ্টদের খুঁটি সরানোর এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে। সড়ক-মহাসড়কে থাকা বৈদ্যুতিক খুঁটি অপসারণের নির্দেশনা চেয়ে গতকাল বুধবার হাইকোর্টে রিটটি করেন ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

আজ আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেসুর রহমান।

পরে রিটকারী আইনজীবী সায়েদুল হক সুমন গণমাধ্যমকে জানান, গত শনিবার রাতে সিলেটে যাওয়ার পথে নরসিংদীর শিবপুরে রাস্তার মধ্যে একটি খুঁটি দেখে ফেসবুকে লাইভ করেন তিনি।

সেই ভিডিও দেখে অনেকেই দেশের বিভিন্ন সড়কে থাকা বিপজ্জনক খুঁটির ছবি ফেসবুকে সুমনকে পাঠান। সেসব ছবি যুক্ত করেই বুধবার হাইকোর্টে জনস্বার্থে এই রিট আবেদন করা হয়।

উল্লেখ্য যে, গত শনিবার তিনি তাঁর ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, মহসড়কের মাঝখানের মহাসড়কের প্রায় দশ ইঞ্চি ভেতরে একটি বিদ্যুতের খুঁটি ‘বীরদর্পে’ দাঁড়িয়ে আছে যা যেকারও মৃত্যুর কারণ হতে পারে।

সাথে সাথে ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায় এবং বাংলাদেশ টুডে মহাসড়কের মাঝেই বিদ্যুতের খুঁটিটি ‘বীরদর্পে’ দাঁড়িয়ে আছে! শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে যা কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হলে ৩ বছর ধরে মহাসড়কের মাঝের বিদ্যুতের খুঁটিটি ১২ ঘন্টা না পেরুতেই অপসারন করে রাস্তা থেকে দূরে সরানো হয়।

শেয়ার করুনঃ