নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতা-২০১৮ এর বেস্ট ইউজ অব ডেটা ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন টীম হিসেবে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) টীম ‘অলিক’। শনিবার রাতে নাসার ওয়েবসাইটে এই ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

এদিকে গ্লোবাল উইনার হিসাবে ‘নাসা স্পেস অ্যাপস গ্লোবাল অর্গানাইজিং টীম’ নাসা স্পেস সেন্টারে যাওয়ার জন্য টীম অলিককে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

শনিবার রাত দুইটার দিকে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতা-১৮ এর মোট ছয়টি ক্যাটাগরির মধ্যে বেস্ট ইউজ অব ডেটা ক্যাটাগরিতে ক্যালিফোর্নিয়া, কুয়ালালামপুর আর জাপানের শীর্ষে থাকা শাবির টীম অলিক’কে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে অ্যাওয়ার্ড ঘোষণা করে নাসা।

এর  আগে গত ১৯-২১শে অক্টোবর মোট ছয়টি ক্যাটাগরিতে সাড়া বিশ্বে আঞ্চলিক প্রতিযোগিতা শুরু হয়।

তারই ধারাবাহিকতায় ঢাকার ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এ বেসিস’র আয়োজনে হ্যাকাথন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রায় দুই হাজারেরও অধিক টীম অংশগ্রহণ করে। তাদের মধ্যে ৮টি টীম বিশ্ব পর্যায়ে প্রতিযোগিতা করে। যার মধ্যে শাবির টীম অলিক একটি।

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতা-১৮ টিম অলিকের লুনার ভি আর প্রজেক্টটি ছিল মূলত একটি ভার্চুয়াল রিয়েলিটি অ্যাপস। যার মাধ্যমে চন্দ্র জগৎ সম্পর্কে একটা অভিজ্ঞতা পাওয়া যাবে।

এব্যাপারে টীম অলিক’র উপদেষ্টা শাবি কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী বলেন, পৃথিবীতে চাঁদে গেছে এমন মানুষের সংখ্যা খুর কম। কিন্তু এই অ্যাপসের মাধ্যমে ভার্চ্যুয়ালি চাঁদ সম্পর্কে জানতে পারবে। আপোলো ১১ মিশনের ল্যান্ডিং এরিয়া ভ্রমণ, চাঁদ থেকে সূর্যগ্রহণ দেখা এবং চাঁদকে একটি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে আবর্তন করা এসব সম্পর্কে ভার্চ্যুয়ালি জানতে পারবে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অংশ নেওয়া টীম অলিকে মোট সদস্য সংখ্যা ছিলো চার জন। তারা হলেন, শাবির জিওগ্রাফি এন্ড এনভায়রমেন্ট বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আবু সাবিক মাহদি, কাজী মইনুল ইসলাম, একই বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী সাব্বির হাসান এবং পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী এস. এম. রাফি আদনান।

বাংলাদেশ থেকে নাসায় প্রতিযোগিতা করে চ্যাম্পিয়ন অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে অলিক টীমের সদস্য কাজী মইনুল ইসলাম বলেন, ‘নাসার মতো প্রতিষ্ঠানে আমরা বাংলাদেশের নাম সবার শীর্ষে তুলে ধরতে পেরে অত্যন্ত গর্বিত।’ নাসায় যাওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমাদের টীমকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সঠিক সময়ে ভিসা পেলে আমরা অবশ্যই সেখানে যোগদান করবো।

শেয়ার করুনঃ