সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের করোনাভাইরাস পরীক্ষার গবেষণাগারটি চালু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে কলেজ ভবনের দ্বিতীয় তলায় মাইক্রোবায়োলজি ও ভাইরোলজি (অণুজীববিজ্ঞান) বিভাগে স্থাপিত ওই গবেষণাগারে নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়েছে। ফলে এখন থেকে আর সিলেট বিভাগের কারও নমুনা পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠাতে হবে না।

প্রথম দিনে বিভাগের চার জেলা থেকে ১১৬টি নমুনা এসেছে। এর মধ্যে সিলেট জেলার ১৯টি। এসব বিষয় প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ও সিলেটে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্তকরণ কমিটির চেয়ারম্যান মো. ময়নুল হক এবং সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডল।

মেডিকেল কলেজ সূত্রে জানা গেছে, গত সপ্তাহে করোনা পরীক্ষার জন্য পিসিআর (পলিমিয়ার্স চেইন রিঅ্যাকশন) যন্ত্রসহ অন্যান্য সরঞ্জাম সিলেটে নিয়ে আসা হয়। সেগুলো দিয়ে মেডিকেল কলেজের দ্বিতীয় তলায় অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের লাইব্রেরি কাম রিডিং রুমে গবেষণাগার (ল্যাব) স্থাপনের কাজ শুরু হয়। গত শুক্রবার ল্যাবের অবকাঠামো নির্মাণকাজ শেষ হয়। যন্ত্রগুলোর স্থাপন কাজ সম্পন্ন হয় শনিবার। পরে যন্ত্র আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের বিশেষজ্ঞরা মেডিকেল কলেজে করোনা পরীক্ষার কাজের দায়িত্ব পাওয়া সহকারী অধ্যাপক, কলেজ ও হাসপাতালের টেকনোলজিস্টদের প্রশিক্ষণ দেন। এই গবেষণাগারে যন্ত্রটির মাধ্যমে প্রায় চার ঘণ্টায় ৯৬টি নমুনা পরীক্ষা করা সম্ভব। সে হিসেবে দিনে আট কর্মঘণ্টায় নির্ণয় করা যাবে ১৯২টি নমুনা। সিলেটে করোনাভাইরাস পরীক্ষা শুরু হওয়ায় এখন থেকে আর নমুনা ঢাকায় পাঠাতে হবে না।

এদিকে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের চিকিৎসাধীন আরও তিনজনের করোনা পরীক্ষার ফল ‘নেগেটিভ’ এসেছে। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) সুশান্ত কুমার মহাপাত্র এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, হাসপাতালে আরও দুজনের নমুনা সংগ্রহ করা হবে। তাঁদের নমুনা এখন আর ঢাকায় পাঠানো হবে না। এখন থেকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেলের পরীক্ষাগারেই নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হবে।

ওসমানী মেডিকেলের অধ্যক্ষ ময়নুল হক প্রথম আলোকে বলেন, মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে সিলেটে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ল্যাব চালু হয়েছে। প্রথম দিনে বেশ কিছু নমুনা ল্যাবে আনা হয়েছে। নমুনাগুলো বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। যথাসময়ে পরীক্ষা করে ফলাফল সংশ্লিষ্ট বিভাগকে জানানো হবে। তিনি বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মেনে এবং পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সরকারিভাবে সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে এ পরীক্ষা করা হচ্ছে।

সিলেটের সিভিল সার্জন প্রেমানন্দ মণ্ডল বলেন, সিলেটে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ল্যাবে প্রথম দিনে মোট ১১৬টি নমুনা এসেছে। এর মধ্যে সিলেট জেলার ১৯টি। বাকিগুলো বিভাগের অন্য তিন জেলা থেকে এসেছে।

শেয়ার করুনঃ