টাঙ্গাইলের সখীপুরে মাথা ন্যাড়া করে গ্রুপ বেধে ফেসবুকে ছবি আপলোড করেন তার।

অনলাইন ডেস্কঃ বর্তমানে সারা বিশ্বে আতঙ্কের নাম কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস। মরণঘাতী এ ভাইরাসের কবল থেকে বাঁচতে আক্রান্ত দেশগুলোতে নেয়া হয়েছে লকডাউনের ব্যবস্থা। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশেও বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। এখানেও সময়ের প্রয়োজনে লকডাউন জারি করা হয়েছে সর্বত্র।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকতে সকলেই মেনে চলছেন বাড়তি সতর্কতা। সকলেই মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করছেন নিয়মিত। শুধু তা’ই নয়, নিজেদের মাথা ন্যাড়া করে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করছেন দেশের তরুণ-যুবক, বৃদ্ধ এমনকি শিশুরাও পর্যন্ত। দেশের বিভিন্ন স্থানে এভাবে মাথা ন্যাড়া করার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

প্রথমে সিলেটে মাথা ন্যাড়া হিড়িক দেখা গেলেও এখন পুরো দেশব্যাপী শতশত যুবকদের মাথা ন্যাড়া করতে দেখা গেছে। অনেকেই মাথা ন্যাড়া করে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে ছবি আপলোড করছেন। অনেকে আবার গ্রুপ বেধে ছবি দিচ্ছেন ফেসবুকে।

জানা গেছে, সিলেটের গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারের শতশত যুবক নিজেদের মাথার চুল কামিয়ে ফেলেছেন। কারণ হিসেবে জানা যায়, লকডাউন ও সরকারি নির্দেশোনার ফলে বাজারের সেলুনগুলো প্রায় বন্ধ। তাছাড়া সেলুনগুলোতে ঝুকি থাকায় নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে অনেকেই এগুলো এড়িয়ে চলছেন। আর এরই ফলশ্রুতিতে বাড়িতেই কামিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের চুল।

গোলাপগঞ্জে মাথার চুল কামিয়েছেন এমন তরুণদের মধ্যে কয়েকজন হচ্ছেন, চন্দরপুরের মিটু আহমদ, রশিদ আহমদ, রুবেল আহমদ, রুহুল আমীন, রুবেল, মারুফ আহমদ, আল-আমীন, বনগ্রামের জাবরুল ইসলাম, সুনামপুরের সংবাদকর্মী কামিল আহমদ, সুহেদ আহমদ প্রমুখ। বিয়ানীবাজারের কয়েকজন হচ্ছেন, মুহিব আহমদ, সাহেদ আহমদ, মাজেদ আহমদ, ইকবাল আহমদ প্রমুখ।

তারা জানান, বর্তমান করোনা পরিস্থিতি কবে নাগাদ স্বাভাবিক হবে তা কারো জানা নেই। সবাই লকডাউনে নিজ বাসা-বাড়িতে অবস্থান করছে। আর এ পরিস্থিতি সেলুন খোলা কিংবা সেলুনে যাওয়া দুটিই অনুচিৎ কাজ। তাছাড়া এই গরমে চুল গুলো লম্বা হলে বাড়তি ঝামেলা পোহাতে হবে। তাই চুলগুলো কামিয়ে এখন বেশ স্বাচ্ছন্দে ও আরামে আছি। দীর্ঘদিন আর সেলুনে যাওয়ারও প্রয়োজন পড়বে না।

এদিকে সিলেট ছাড়াও পুরো দেশে মাথা ন্যাড়ার এমন হিড়িক দেখা গেছে। হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, টাঙ্গাইলের সখীপুর ইত্যাদি স্থানে শতশত তরুণ-যুবক এমনকি বৃদ্ধদেরও ন্যাড়া হতে দেখা গেছে।

তাছাড়া বহির্বিশ্বে বাঙ্গলী প্রবাসীদের মাঝেও এভাবে মাথা ন্যাড়া করার হিড়িক পড়তে দেখা গেছে।

শেয়ার করুনঃ