গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি: গোলাপগঞ্জে এক যুবককে পৃথক স্থানে মারধর করে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের ঘোষগাঁও গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

ছিনতাইয়ের স্বীকার আব্দুল করিম দক্ষিণ সুরমা থানার তেতলি (বেটুরপার) গ্রামের মৃত রস্তম আলীর পুত্র।

এ ঘটনায় গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় আব্দুল করিম বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। এতে খর্দ্দাপাড়া গ্রামের মৃত সাম আহমদের পুত্র সিএনজি চালক জবরুল ইসলাম (৩৩), মৃত ওয়ারিছ আলীর পুত্র নজরুল (৩৫), মৃত আরব আলীর পুত্র মায়ন আহমদ (৪২), কালা মিয়ার পুত্র ফয়ছল আহমদ (২২) এর নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত একজনকে আসামী করা হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে আব্দুল করিম গোলাপগঞ্জ কদমতলী থেকে একটি সিএনজি অটোরিকশা যোগে শ্বশুর বাড়ি নিশ্চিন্ত গ্রামে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। পথিমধ্যে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী সিএনজি চালক জবরুল ইসলাম (৩৩) ঘোষগাঁও লন্ডনি বাড়ির সামনে আসামাত্র সিএনজি অটোরিকশা বন্ধ করে দিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে বলে জানান। এরপর চালক গাড়ির অবস্থান ফোন দিয়ে অন্য কয়েকজনকে বলতে থাকেন। এসময় কয়েকজন যুবক এসে আব্দুল করিমকে মারধর করে সাথে থাকা নগদ ৮০হাজার টাকা নিয়ে যায়। আব্দুল করিম শ্বশুর বাড়ি থেকে আবার ফেরার পথে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে খর্দ্দাপাড়া পাঁচ পীর নামক স্থানে আসামাত্র আরেক দফায় তাকে মারধর করে। এ ঘটনায় যেন থানা পুলিশকে না বলে এজন্য হুমকি দেওয়া হয় তাকে।

এ ব্যাপারে আব্দুল করিম জানান, আমি প্রথমে তাদের চিনতে পারিনি। খর্দ্দাপাড়া পাঁচ পীর নামক স্থানে আবার তারা হামলা চালালে স্থানীয় ও আমার শ্বশুর বাড়ির সহযোগীতায় তাদের পরিচয় জানতে পারি। তাদের সাথে আমার পূর্বের কোন শত্রুতা নেই, ছিনতাই করতেই তারা পরিকল্পিতভাবে আমায় মারধর করে আমার সাথে থাকা ৮০হাজার টাকা নিয়ে যায়।

এব্যাপারে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার এস আই মামুন আহমদ জানান, আমি মঙ্গলবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুনঃ