চন্দরপুরে একসাথে স্বামী-স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত

চন্দরপুরে একসাথে স্বামী-স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত



গোলাপগঞ্জে ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। গত ১১ ও ১২ তারিখের নমুনা পরীক্ষায় উপজেলাজুড়ে নতুন করে আরও ১৫ জনের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। তবে এ দুই দিনে সুস্থ হয়েছেন আরও ৬ জন।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহীনুর ইসলাম শাহিন।

আক্রান্তরা হলেন, উপজেলার পৌর এলাকার রণকেলী গ্রামের ২ জন, বুধবারীবাজার ইউনিয়নের চন্দরপুর গ্রামের ২ জন, ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের ১ জন, বাদেপাশা ইউনিয়নের ২ জন, গোলাপগঞ্জের ৩ জন, গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ১ জন, লক্ষণাবন্দ ইউনিয়নের ২ জন এবং আমুড়া ইউনিয়নের ২ জন৷

বুধবারীবাজার ইউনিয়নের চন্দরপুর গ্রামের আক্রান্ত ২জন সম্পর্কে স্বামী-স্ত্রী। আক্রান্ত স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে স্ত্রী গৃহিণী এবং স্বামী সাবেক স্কুল শিক্ষক। তারা কিছুদিন থেকে জ্বর-সর্দিতে আক্রান্ত হওয়ায় করোনা টেস্ট করিয়েছিলেন। এতে তাদের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

তবে আক্রান্তদের সাথে কথা বলে জানা গেছে তারা এখন সুস্থ রয়েছেন। শরীরে করোনার কোনো লক্ষণ প্রায় নেই বলেই জানিয়েছেন আক্রান্ত ওই মহিলা। তিনি জানান তার স্বামীও এখন প্রায় সুস্থ রয়েছেন।

তবে উপজেলার করোনা শনাক্তের সর্বশেষ আপডেট ইউনিয়নভিত্তিক জানানো হলেও সঙ্গত কারণে রোগীদের নাম পরিচয় প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকা হচ্ছে। তাই নিজ নিজ এলাকার  সর্বশেষ তথ্য জেনে সচেতন থাকার পরামর্শ দিয়েছেন সচেতন মহল।

এদিকে চন্দরপুর গ্রাম ও বাজার ঘুরে দেখা গেছে সচেতনতার কোনো বালাই নেই সেখানে। কঠোর লকডাউনেও সেখানে অবাধে চলাচল ছিলো এলাকাবাসীর। অথচ মহামারি করোনা সেখানে কড়া নাড়াচ্ছে। ফলে নিজে ও নিজের পরিবারকে সুরক্ষিত রাখতে নিরাপদ দূরত্ব, মাস্ক ব্যবহার এবং সর্বোপরি সচেতনতার তাগিদ দিয়েছেন সচেতন মহল।


Previous Post Next Post