২য় বিয়ে ও সম্পত্তির জন্য নিজের ছেলে-শ্যালকদের হাতে খুন হন তোতা মিয়া

২য় বিয়ে ও সম্পত্তির জন্য নিজের ছেলে-শ্যালকদের হাতে খুন হন তোতা মিয়া



গোলাপগঞ্জে নিজের ছেলেদের হাতে নিহত হওয়া তোতা মিয়া কি কারণে খুন হলেন তা সামনে এসেছে। জানা যায় নিহতের ২য় বিয়ে এবং সম্পত্তির জেরেই নিজের ৩ ছেলে, ২ শ্যালক এবং অপর আরেকজন তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

গতকাল শুক্রবার (২ জুলাই) রাত ৮টার দিকে উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের পরগণা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। নিহত তোতা মিয়া (৫৫) পরগণা বাজার এলাকার মৃত আখমল আলীর ছেলে।

ঘটনার সময় নিহতের তিন ছেলে মাছুম আহমদ (২৮), রাজিম (২৫), তামিম (২০) এবং নিহতের প্রথম স্ত্রীর দুই ভাই জামাল (৪৫), সেবুল (৪০)সহ আলাল (৩০) নামের আরেকজন পরগণা বাজারে তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেলে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহতের ভাগনে নেওয়াজ উদ্দিন খা জানান, দীর্ঘদিন থেকে আমার মামার সাথে তার সন্তানদের সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। বার বার সম্পত্তি তাদের নামে লিখে দেওয়ার জন্য তারা চাপ দেয়। আগেও সম্পত্তির কারণে তারা তাদের পিতার উপর আক্রমণ করে। গত ৩ মাস আগে মামার এক মেয়ের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তার ছেলেরা তাদের মাকে নিয়ে নানা বাড়ি চলে যায়। এসময় তিনি একা হয়ে যান। বার বার তিনি তাদেরকে বাড়িতে আসার কথা বললেও তারা বাড়িতে আসেনি। এরপর গত ১৮ দিন পূর্বে তিনি একা হয়ে যাওয়ায় আরও একটি বিয়ে করেন। এতে সন্তানদের ক্ষোভ আরও বেড়ে যায়। পরগণা বাজারে তোতা ম্যানশন নামে একটি মার্কেটও রয়েছে ওনার। তারা সম্পত্তি এবং দ্বিতীয় বিয়ের কারণেই মামাকে হত্যা করেছে। এঘটনায় মামলা করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পরগণা বাজারে দাঁড়িয়ে ছিলেন তোতা মিয়া। কিছু বুঝে উঠার আগেই পিছন দিক থেকে ওনাকে দাঁ দিয়ে পিঠের মধ্যে কোপ দেয়া হয়। এরপর শাবল দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়। এসময় স্থানীয়রা চিৎকার শুরু করলে তারা পালিয়ে যায়।

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ চৌধুরী জানান, মা-বাবার মধ্যে পারিবারিক টানাপোড়ন, সম্পত্তির জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি।

Previous Post Next Post